5 Offbeat Destinations for your Perfect Weekend Gateway

5 Offbeat Destinations for your Perfect Weekend Gateway

5 Offbeat destinations for your perfect Weekend gateway Written by Anindita and Sourav For most of us the best part of a week is weekends & we keep searching for weekend destinations to spend a few days away from the stressful daily life. But unfortunately now a days most of the common weekend gateways are so crowded that we miss the peaceful environment which we need to refresh our mind. So here we are suggesting you five offbeat destinations around kolkata with lesser crowd & more peace. 1. Vetnai (Wild life, Birds) Vetnai is a small lesser known village in Odisha’s Ganjam district. It is famous for Blackbuck. Here approximately 1600 blackbucks roam around freely. The landscapes and various types of birds will also lure you. If you have time, you can also add Monglajori bird sanctuary in your itinerary to view rare birds and some beautiful butterflies.   How to reach : You can take overnight train from Howrah to Brahmapur (Odisha). The convenient train is 12863 Howrah – Yesvantpur SuperFast Express which departs from howrah at 8.35 P.M. and arrives at Brahmapur (BAM) at 6 A.M. From Brahmapur there are regular bus services that can take you to Aska as well as Bhetnai. How to plan: Saturday : Reach Brahmapur in the morning and check-in to the Hotel. Then proceed to Vetnai by Auto. Return back to hotel in the evening. Sunday : You can stroll around the place or you may again go to Vetnai to observe Blackbuck. Or you can go to Pakidi village to see our national bird. After lunch you can go back to Brahmapur for night train. If you have...
Kuldiha Forest – A Weekend Destination in Orissa

Kuldiha Forest – A Weekend Destination in Orissa

Kuldiha Forest – A Weekend Destination in Orissa কুলডিহার জঙ্গলে Content by Sanghamitra Mondal   সারাটা বছরের কত সুখ-দুঃখের ঘটনা একটু একটু করে আমাদের স্মৃতির পাতায় জমা হতে থাকে আর যখন তাকে ছেড়ে আর একটা নতুন বছরে পা দিই মনটা আপনিই কেমন হু হু করে ওঠে। তাই শুরুটাই যদি একটা বেড়ানো দিয়ে হয় তবে মনটাও ফুরফুরে হয় আবার নতুন বছরটাকেও বেশি আপন মনে হতে থাকে! অবশ্য যারা কিনা বেড়ানো পাগল তারা বছরের যেকোনো সময়ই ঘুরতে যাওয়ার ঠিক একটা যুতসই কারণ খুঁজে মনকে বুঝিয়ে নেয়। যাই হোক আমরাও তাই নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে গোঁড়ার দিকেই ছোট্ট একটা ট্রিপের আয়োজন শুরু করে দিলাম। নামের মাধুর্যের কারণেই হোক বা কাছপিঠে বলেই হোক, কুলডিহা নামটা অনেকদিন থেকেই মাথায় বাসা বেঁধেছিল। যাবার দিন স্থির হল। ট্রেনের টিকিটও কেটে নিলাম। পরের পর্ব হল কোথায় থাকব আর কি দেখব! বিস্তর গুগুল সহায়তা আর মেলামেলির পর একটা নাম ও ফোন নাম্বার বের করলাম। মনোরঞ্জন দাশ! উড়িয়া এই ভদ্রলোকের দেওয়া মাথাপিছু চার হাজারি প্ল্যানটা বেশ ন্যায্য আর ঝক্কিহীন মনে হল! ব্যাস আরকি! হাওড়া থেকে সকাল 7.25 এর ফালাকনামায় চেপে বসলাম আরেক অজানাকে জানবার উদ্দেশ্যে। মাত্র ঘণ্টা তিনেকের রেলপথ। সকালের কাঁচা ঘুমটা সামান্য কেক-বিস্কুট দিয়ে ট্রেনেই পাকিয়ে নিয়ে যখন বালাসোর পৌঁছলাম গাড়ি স্টেশনে অপেক্ষা করছিল আমাদের জন্য। সময় নষ্ট না করে হোটেলের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। শান্ত নিরিবিলি, সবুজ মাঠ আর দূরের পাহাড়ের হাতছানি এরই মাঝে আমাদের ছোট্ট হোটেল। ঠিক যেমনটা সিনেমায় হয়। কিন্তু দুদিনের সফরে এসে হোটেলে বসে প্রকৃতি উপভোগ করার বিলাসিতা কি আর আমাদের সাজে! তাই একটু বিশ্রাম নিয়ে দুপুরের খাবার খেয়ে বেরিয়ে পড়লাম পঞ্চলিঙ্গেশ্বর মন্দিরের উদ্দেশ্যে। দূরপাহাড়ি রাস্তার দুপাশে কখনও সবুজ জঙ্গল কখনও খোলা মাঠ এই নিয়েই চলতে থাকল আমাদের গাড়ি। এক জায়গায় মূর্তি বানানোর কারখানা দেখে...
Weekend Trip To Lepchajagat and Singell Tea Estate

Weekend Trip To Lepchajagat and Singell Tea Estate

Weekend Trip To Lepchajagat and Singell Tea Estate লেপচাজগৎ দার্জিলিং হিমালয়ে ৬৯০০ ফুট উচ্চতায়, আরণ্যক পরিবেশে, নৈস্বর্গিক শোভায় ভরা এক ছোট্ট গ্রাম। ঘুম – সুখিয়াপোখরি সড়কের উপর, ঘুম থেকে ৮ কিমি দূরে অবস্থান লেপচাজগতের। পাহাড়ের রানি জনপ্রিয় শৈল শহর দার্জিলিংয়ের জাকজমকের অন্তরালে থাকা, অল্পচেনা এই সুন্দর পর্যটন গ্রামটির চারিদিকে বিস্তৃত পাইন, ওক ও রডোডেনড্রনের ঘন জঙ্গল। মেঘমুক্ত আকাশে জঙ্গলের মাঝে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে রাজকীয় কাঞ্চনজঙ্ঘার শ্বেতশুভ্র পর্বত শিখর, লেপচাজগতের শোভা বর্ধন করে। ‘ড্যাং’, ‘ক্যাং’ বা ‘গ্যাং’ – অর্থাৎ দার্জিলিং, কালিম্পং বা গ্যাংটক, বেশ কয়েকবার ঘোরা হয়ে গেছে। এখন দার্জিলিংয়ের পাহাড়ে ছুটে চলা কোন অল্পচেনা ট্যুরিস্ট স্পট বা অপরিচিত পাহাড়ি গ্রামের আকর্ষণে, যেখানে অখন্ড প্রাকৃ্তিক সৌন্দর্যের সাথে মিলে মিশে থাকবে শান্ত, নিরিবিলি, নির্মল এক পরিবেশ। আর তার সাথে যদি মেলে হোম স্টেতে থেকে স্থানীয় পাহাড়িদের আতিথেয়তা। জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে (২০১৭ সালে) ছোট্ট ভ্রমণ সূচিতে বেরিয়ে পড়েছি এমনই অল্পচেনা গ্রাম লেপচাজগৎ আর তার সাথে ‘সিঙ্গেল’ চা বাগানের উদ্দেশে। আগের রাতে কলকাতা স্টেশন থেকে গরীব রথ এক্সপ্রেসে চেপে সকাল ন’টা নাগাদ নামলাম নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে। সেই চেনা এন জে পি স্টেশনের বহু পরিচিত জিপ স্ট্যান্ড। দার্জিলিং গামী একটি শেয়ার জিপে চেপে বসলাম। ঘুম পর্যন্ত যাব। গাড়ি পাহাড়ে ওঠার পর, নতুন তৈরি হওয়া রোহিনি রোড ধরে গাড়ি ছুটল কার্শিয়াং অবধি। ব্রেথটেকিং ভিউ এ রাস্তাটিতে। কার্শিয়াং পৌঁছানোর পর ঘিঞ্জি হিলকার্ট রোডে পড়লাম। তারপর দিলারাম, সোনাদা  পেরিয়ে ঘুম স্টেশনে নেমে পড়লাম আমরা। ৭৪০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত ঘুম স্টেশনটি দার্জিলিং হিমালয়ান রেলের তথা দেশের উচ্চতম রেল স্টেশন। আগে থেকে বুক করে রাখা হোম স্টে থেকে পাঠানো গাড়িতে ঘুম থেকে আধ ঘণ্টায় পৌঁছে গেলাম লেপচাজগতের পাখরিন হোম স্টে তে। লেপচাদের জগৎ। কয়েক ঘর লেপচা ও তামাং পরিবারের বাস এই গ্রামে। লেপচাজগতে প্রবেশ করেই মূল সড়কের পাশেই তামাং...
সপ্তাহান্তে ঝান্ডি ও কোলাখামের পথে

সপ্তাহান্তে ঝান্ডি ও কোলাখামের পথে

ছোট্ট ছুটিতে চলেছি উত্তর বঙ্গের পাহাড়ে, মে মাসের গ্রীষ্ণের দাবদাহ থেকে সাময়িক মুক্তি পেতে। গন্তব্য ঝান্ডি ও কোলাখাম। পূর্ব হিমালয়ের কোলে, অধুনা কালিম্পং জেলায়, পরিচিত পর্যটন স্থল লাভার আশেপেশে এ দুটি অল্পচেনা পাহাড়ি গ্রাম। ঝান্ডির পথেঃ   শিয়ালদা থেকে সাড়ে আটটার কাঞ্চনকন্যা এক্সপ্রেসে চড়ে পরদিন সকাল সাড়ে ন’টা নাগাদ পৌঁছলাম নিউ মাল জংশন স্টেশনে। শিলিগুড়ির পর থেকে চা বাগান ও ডুয়ার্সের জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে, নানান পাহাড়ি নদীর উপর ব্রীজ পেরিয়ে এ রেল যাত্রা খুবই মনোরম। ডুয়ার্স ভ্রমণের গেটওয়ে নিউ মাল। মালবাজারে এখন অসহ্য গরম। এযাত্রায় আর সমতলের গরমে না থেকে পাহাড়ের ঠান্ডায় যাওয়া ঠিক করেছি। এখান থেকে ঝান্ডি ৩২ কিমি। ঘন্টা দেড়েকের রাস্তা। ঝান্ডিতে আমাদের বুকিং ‘ঝান্ডি ইকো হাট’এ। সেখান থেকেই গাড়ি পাঠিয়েছিল আমাদের জন্য নিউ মাল স্টেশনে। অল্প বয়সী নেপালি ড্রাইভার অনিল শর্মা, বেশ ভদ্র ও বিনয়ী। নানান চা বাগানের মধ্যে দিয়ে পথ। পথে পড়ল লোয়ার ফাগু টি এস্টেট। খানিকটা ড্রাইভারের জোরেই চললাম ফাগু টি বাংলো দেখতে। মূল রাস্তা ছেড়ে কয়েক কিমি বন্ধুর পথ। বাংলোটিতে পৌঁছে মন ভরে গেল। ফাগু টি এস্টেটের মাথায়, বহু পুরানো ব্রিটিশ আমলের হেরিটেজ বাংলো। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণ চমৎকার। এক কর্মচারী থাকার ঘর গুলি ঘুরিয়ে দেখাচ্ছিল। মুখ্যমন্ত্রীও নাকি এসে থেকে গেছে এই বাংলোয়। বাংলোর হাতা থেকে দেখা যায় ডুয়ার্সের উপত্যকার দারুণ এক দৃশ্য। বারান্দায় বসে চা পান করে আবার চলা। এরপর পথে পড়ল গরুবাথান। এক আধা পাহাড়ি, নেপালি জনপদ। স্থানীয় নাম সোমবারে। পথের বাঁদিকে দেখা হল ‘চেল’ (Chel) নদীর সাথে। লাভাগামী মূল সড়ক ছেড়ে বাঁহাতি রাস্তায় চেল নদীর উপর কাঠের ব্রীজ পার হলাম। নদীর রূপ দেখে থামতে হল কিছুক্ষণ। নদীবক্ষে ছোট বড় অনেক প্রস্তরখন্ড। তার মধ্যে দিয়ে সশব্দে বয়ে চলেছে খরস্রোতা নদীটি। চারিপাশ সবুজ পাহাড়ে ঘেরা। সে দৃশ্য ক্যামেরা বন্দী করে আবার চলা। এরপর আপার...