Nimpith and Kaikhali trip guide

Nimpith and Kaikhali trip guide

Nimpith and Kaikhali – tourist spot near kolkata আগের উইকএন্ডে দেওঘর থেকে ঘুরে আসার পর শনিবার সকালে উঠেই আবার মনে হল শীতকালে ছুটির দিনগুলো বাড়ি বসে নষ্ট হতে দেওয়া কি ঠিক? কাছে পিঠেই নাহয় কোথাও ঘুরে আসি। আমার যে ‘পায়ের তলায় সর্ষে’। কোন আগাম প্ল্যান ছিল না। তাই একদিনেই ফিরে আসার মত জায়গার কথা ভাবতে গিয়ে মনে এল নিমপিঠ ও মাতলা নদীর ধারে কৈখালির নাম। শিয়ালদা থেকে দুজনে চেপে বসলাম লক্ষীকান্তপুর লোকালে। প্রথম গন্তব্য জয়নগর। শিয়ালদা সাউথ সেকশনের ট্রেনের ভিড়ের কথা সকলেরই জানা। ১ ঘন্টা ২০ মিনিটের ট্রেন যাত্রায় পৌঁছলাম জয়নগর-মজিলপুর স্টেশনে। স্টেশনের বাইরে এসে শেয়ার অটো ধরে মিনিট দশেকে নিমপিঠ (Nimpith) রামকৃষ্ণ আশ্রম। বেলুড় মঠের আদলে তৈরি সুন্দর মন্দির ও সমগ্র কম্পাউন্ড জুড়ে নানান রঙ বেরঙের মরসুমি ফুলের বাহার। রয়েছে স্কুল। দুপুর হয়ে গেছে। কম্পাউন্ডের একপাশে পাতা সার সার টেবিল চেয়ারে বসে অনেক মানুষ। জানা গেল একটু বাদেই খাবার বিতরণ হবে। ভিতরের অফিস ঘর থেকে কুপন কেটে আমরাও বসে পড়লাম দুটি চেয়ারে বাকিদের সাথে। এই আশ্রমে প্রতিদিন শতাধিক মানুষের আহারের আয়োজন করা হয়। বসে থাকা ভোজনার্থীদের মধ্যে যেমন স্থানীয় পড়ুয়া রয়েছে, তেমনই কুপন কেটে আমাদের মত কলকাতা থেকে আসা ভ্রমণার্থীও আছে। নিরামিষ আহার পর্ব সারার পর আশ্রমের অফিস ঘরে গিয়ে খোঁজ নিলাম মাতলা নদীর পাড়ের কৈখালির। শুনেছিলাম সেখানে এদেরই আরেকটি আশ্রম ও আশ্রম পরিচালিত পর্যটক আবাস আছে। জানতে চাওয়া হল আমরা সেখানে রাত্রিবাস করব কিনা। দিনে দিনে ঘুরে আসার প্ল্যানের কথা জানাতে আশ্রমের এক সন্ন্যাসী পরামর্শ দিলেন অটো রিসার্ভ করে ঘুরে আসতে। সেই মত গেটের বাইরে থেকে একটি অটোর সাথে ৫০০টাকায় চুক্তি হল যে আমাদের কৈখালি ঘুরিয়ে নিয়ে এসে সন্ধ্যেবেলা জয়নগর স্টেশনে ছেড়ে দেবে। নিমপিঠ থেকে কৈখালি ও মাতলা নদী নিমপিঠ থেকে কৈখালি ৩৮কিমি। অটোতে প্রায় দেড় ঘন্টা...
Simlipal National Park Tour guide

Simlipal National Park Tour guide

Simlipal National Park and Bangriposi weekend trip guide সিমলিপাল(Simlipal National Park) !! নামটা বেশ জমকালো। কিন্তু জায়গাটা কেমন? ইন্টারনেট ঘেঁটে যা তথ্য পাওয়া যায় তাই দিয়েই সেরে নেওয়া হল যাবার পরিকল্পনা। সিমলিপাল ন্যাশনাল পার্ক আয়তনে ২৭৫০ বর্গ কিলোমিটার। গড় উচ্চতা ২০০০ ফুট।গভীর জঙ্গলে পরিপূর্ণ সুউচ্চ পর্বতমালা উড়িষ্যার উত্তর পূর্ব দিকে কোথাও বিস্তীর্ণ বা কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে রয়েছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হল সিমলিপাল।উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গের সীমানা থেকে মাত্র ৩০ কিলোমিটার। সড়কপথে কলকাতা থেকে দূরত্ব প্রায় ২৩০ কিলোমিটার। তাই কলকাতা ও শহরতলির মানুষজনের ক্ষেত্রে কাছাকাছির মধ্যে মনোরম অথচ অন্যরকম জায়গা এই সিমলিপাল। সিমলিপাল ন্যাশনাল পার্কের প্রবেশপথ প্রধানত দুটি। ১. পিথাবাটা ২. যোশীপুর। কাছাকাছি হোটেল বলতে বারিপাদায়( পিথাবাটা গেট থেকে ২০ কিমি) যথেষ্ট হোটেল আছে। বেশীরভাগ পর্যটক তাই বারিপাদা থেকেই সিমলিপাল যান। পিথাবাটা গেট দিয়ে ঢুকে আবার পিথাবাটা দিয়েই বেরিয়ে আসেন। কিন্তু আমরা হোটেল নিলাম বাংরিপোসি তে,সিমলিপাল রিসর্ট(One of the good resort near Simlipal national park)। পাহাড়ে ঘেরা উন্মুক্ত প্রান্তরের মাঝে ছোট্ট রিসর্ট,কলকাতা মুম্বাই জাতীয় সড়কের পাশেই। এখান থেকে পিথাবাটা গেট ৪৬ কিলোমিটার, এবং যোশীপুর গেট ৭০ কিলোমিটার। আমরা পিথাবাটা গেট দিয়ে ঢুকে যোশীপুর গেট দিয়ে বেরিয়ে যাব। তাতে সময় যেমন বাঁচবে বেশী, তেমনি জঙ্গলের অনেকটা জায়গা এক্সপ্লোর করা যাবে সীমিত সময়ের মধ্যেই। জঙ্গলের মধ্যেও যদিও থাকার যায়গা রয়েছে। বহির্বিশ্বের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে প্রকৃতির মাঝে ক দিন কাটাতে চাইলে এখানে থাকা যেতেই পারে। আমরা সকাল সাড়ে ছটায় বাংরিপোসির রিসর্ট থেকে রওনা দিলাম। বারিপাদা ছাড়িয়ে আমরা ঢুকতে শুরু করেছি জঙ্গলের রাস্তায়। গেট অবধি সরু পিচের রাস্তা।আশপাশের ভুমিরূপ উঁচুনিচু। মাঝে মাঝে খেজুর গাছ,পথের দু পাশে চাষের জমি। সদ্য ধান কাটা হয়েছে। ধূসর আগাছাগুলো শুধু রয়ে গেছে সোনালী ধানের স্মৃতি হিসেবে। দূরে দেখা যাচ্ছে কুয়াশামাখা পাহাড়। মাঝে মাঝে আদিবাসী গ্রাম। মুঠোফোনের নেটওয়ার্ক যাওয়া আসা করতে লাগল।...
Hidden Treasure of West Bengal-Yelbong

Hidden Treasure of West Bengal-Yelbong

Hidden Treasure of West Bengal-Yelbong Are you a nomad? Do you love hills more than anything? Got love for adventure? Got love for hilly rivers? Does outdoor Camping under the starry night or beside a hilly river amidst of jungle excites you? Do you love to explore hidden beautiful waterfalls or mother nature’s beautiful rare creation the ”River Canyon” ,which is seldom found?Does the chirping of birds,kiss of lovely butterflies ,sound of a flowing river and sudden sound of silence provide foods to your soul? Do you love to hear the hymns in a calm place far from madding crowd while sitting idle at a rock or resting in a hammock in front of your tent? Do you love those amateur jamming sessions with guitar/ukulele/flutes around a bonfire with local drinks and smells of smoked chicken? If all the answer is yes and you are searching for a such place then your search ends here in Yelbong, a tiny rural hilly hamlet in Kalimpong district of West Bengal with lovely villagers who are ready to welcome you and show you the hidden treasures, mother nature kept around them and they are protecting them very well. Let me introduce this very beautiful place which is very lesser known to many a travel bugs.   Reaching there:: You have to take the road via Bagrakot to reach the village,last 4 km is only accessed by foot or 4×4 car (available on request). It’s near to New mal Jn and from Siliguri it will take around 2.5 hours.The distance from bagrakot is around 18km.Last 4km is only accessed either by foot or...
Top 20 weekend destinations from kolkata for 2019

Top 20 weekend destinations from kolkata for 2019

Top 20 weekend destinations in 2019 Here is a list of top 20 weekend destinations, which are easy accessible from kolkata. These places are ideal for weekend trip. 1. Chandpur – The newest beach destination near Kolkata Chandpur is the newest beach destination near Kolkata. Still untouched by tourists, Chandpur has the cleanest stretch of beach anywhere near Kolkata. Budget: Around Rs. 3000/ head Ideal for: Nature lover, Family Trip.  Read More about Chandpur Here  2. Sundarban-World largest mangrove forest I always love long boat ride. So when my friend Avijit told me he has a work in Sundarban and it’s a long boat journey, if I wish I can join with him. I did not even take a second to reply yes. Yes Sundarban I am coming. Budget: Rs. 3000 to 4000/ head Ideal for: Family trip, Picnic Lovers, Wild life lovers, Photographers.  Read More about Sundarban Here   3. Kuldiha – A land of Malabar squirrel Kuldiha is a beautiful forest of Orissa. This place is ideal for a weekend trip. Budget: Rs. 2500 to 3500/ head Ideal for: Family trip, Wild life lovers, Photographers.  Read More about Kuldiha Here 4. Chupi Char(Purbasthali) : A gateway for bird watcher. If you are a Bird watcher then this place is ideal for you. This place can be easily accessible from Kolkata. Budget: Rs. 1500 to 2500/ head Ideal for: Family trip, Wild life lovers, Photographers., Picnic lovers.  Read More about Chupi Char Here 5. Ghatshila  Budget: Rs. 1500 to 2500/ head Ideal for: Family trip, Photographers, Picnic lovers. 6. Digha Village Budget: Rs. 1500 to 2500/ head Ideal for:...
Weekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi

Weekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi

Weekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi সপ্তাহান্তে রাঁচিতে দুদিন  content by Mr. Subhrangsu Dasgupta অফিসে কাজের চাপে পাগল পাগল অবস্থা। সে চাপ কাটিয়ে কোথাও একটু ঘুরে আসতে মন চায়। সেই ভেবে শীতের শুরুর উইকএন্ডে ঠিক করলাম রাঁচীই ঘুরে আসি। শনি রবি দুদিনের ট্যুর। মূলত ছোট নাগপুর মালভুমির প্রকৃতির মাঝে রাঁচীর আশেপাশের বিখ্যাত জলপ্রপাতগুলির দর্শন। হুড্রু, জোনা, সীতা ও দশম ফলস, সাথে উপরি ড্যাম ও মন্দির সহ আরো কিছু দ্রষ্টব্য স্থান। শুক্রবার রাতে হাওড়া থেকে হাতিয়া এক্সপ্রেস (বর্তমান নাম ক্রীয়াযোগা এক্সপ্রেস) ধরে রওনা হলাম দুজনায়। তিন ঘন্টা লেটে রাত সোয়া একটায় ছাড়ল সে ট্রেন। সকালে ঘুম ভাঙতে দেখি ট্রেন ‘মুরি’ স্টেশনে দাঁড়িয়ে। মনে পড়ে যায় ‘চারমূর্তি’ সিনেমায় ঘুটঘুটানন্দের সেই মুরি। এখানে আছে হিন্ডালকোর অ্যালুমিনিয়াম প্লান্ট, যার কো-জেন পাওয়ার প্রোজেক্টের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাথে যুক্ত ছিলাম কর্মজীবনের প্রথম দিকে। মুরিতে ইঞ্জিন বদল করে উল্টোদিকে চলতে থাকে ট্রেন। অনেকেরই জানা মুরি থেকে রাঁচীর ঘন্টা দেড়েকের রেল যাত্রা পাহাড় ও জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে বেশ মনোরম। গঙ্গাঘাট, টাটিসিলওয়াই, নামকুম পেরিয়ে রাঁচী (Ranchi) পৌঁছতে পৌনে দশটা বেজে গেল। প্রথম দিনঃ স্টেশনের কাছেই হোটেল অম্রিতে (Hotel Amrit) কথা বলা ছিল। এশহরে কিছু আত্মীয়ের বাড়ি থাকলেও, যেহেতু ঘোরার উদ্দেশে আসা, তাই হোটেলেই থাকব ঠিক করেছিলাম। হোটেলে আমাদের জন্য গাড়ি নিয়ে আগে থেকেই অপেক্ষা করছিল রাজেশ কুমার। আত্মীয়দের মাধ্যমেই তাদের পরিচিত ড্রাইভার রাজেশের গাড়ির ব্যবস্থা হয়ছিল। এই দুদিন সেই আমাদের সব ঘোরাবে। হোটেলের ঘরে চটপট স্নান ও ব্রেকফাস্ট সেরে এগারোটা নাগাদ বেরিয়ে পড়লাম রাজেশের গাড়িতে, ফলস দেখার উদ্দেশে। এখানে বলে রাখি জলপ্রপাতগুলি রাঁচী শহর থেকে কিছুটা দূরে দূরে। আবার হুড্রু, জোনা যেদিকে দশম ফলস তার একেবারে অন্য দিকে। অনেকটা ওঠা নামা করতে হয় বলে প্রতিটা ফলস দেখতে অনেকটা সময়ও লেগে যায়। তাই সব কটি ফলস একদিনের ট্যুরে...