জঙ্গলময় রাজস্থান – ভরতপুর বার্ড স্যাঙ্কচুয়ারি

জঙ্গলময় রাজস্থান – ভরতপুর বার্ড স্যাঙ্কচুয়ারি

রাজস্থান বলতেই মনে পড়ে কেল্লা, বালি, পাথর আর মরুভূমির কথা। কিন্তু জঙ্গল, বন্যপ্রাণ ও পক্ষীকুলের সম্ভার নিয়ে আরেকটা সবুজ অংশও রয়েছে এই বৈচিত্রময় রাজ্যে। ‘রেগিস্তান’এর ছবির আড়ালে পূর্ব রাজস্থানে রয়েছে তিনটি অনন্য অভয়ারণ্য – সরিস্কা, রনথম্ভোর ও ভরতপুর। কলকাতা থেকে ৮-১০ দিনের রাজস্থানের ট্যুর প্যাকেজে গিয়ে সাধারণত যা দেখা হয় না অধিকাংশ পর্যটকেরই। “Maati Baandhe Painjanee../Bhangd Pehne Baadli../ Dedo Dedo Baavdo../ Ghod Mathod Bhavdi…” চেনা চেনা ঠেকছে গানের লাইনগুলো? এটা রাজস্থান ট্যুরিজমের বিজ্ঞাপনের সেই সরকারি থিম সং। সেই বিজ্ঞাপনে একেক জন রাজস্থানকে দেখে একেকরকম ভাবে। এতই বৈচিত্রে ভরা রাজস্থান। মনমাতানো রাজস্থানী ফোক গানটির সাথে একাত্ম হয়েই আজ দেখে নেওয়া যাক পাখিদের স্বর্গরাজ্য ভরতপুরকে। ‘কেওলাদেও ঘানা ন্যাশনাল পার্ক’। পূর্ব রাজস্থানে ভরতপুর শহরের কিনারে অবস্থিত এই অভয়ারণ্য বেশি পরিচিত ‘ভরতপুর বার্ড স্যাঙ্কচুয়ারি’ নামে। ভারতের বৃহত্তম পাখিরালয়। নভেম্বর থেকে মার্চ যা হয়ে ওঠে পাখি দেখার স্বর্গরাজ্য। দিল্লি থেকে দূরত্ব ১৮২ কিমি। আগ্রা – জয়পুর জাতীয় সড়কের পাশেই পাখিরালয়ের প্রবেশদ্বার। যা আগ্রা থেকে ৫৫ কিমি ও জয়পুর থেকে ১৭২ কিমি। ২৯ বর্গ কিমি এলাকা জুড়ে এই অভয়ারণ্যে গড়ে উঠেছে পাখিরালয়। ১৯৮১ তে জাতীয় উদ্যানের শিরোপা পায় এই পাখিরালয়। মূলতঃ শুষ্ক পর্ণমোচী বৃক্ষ, ঝোপঝাড়, জলাভূমি ও ঘাসের জঙ্গল – এই নিয়ে অভয়ারণ্য। স্টর্ক, হেরন, বিল, ডাস্ক, কর্মোরান্ট, স্যান্ডপাইপার সহ প্রায় ৩৬০ রকম প্রজাতির পাখির দেখা মেলে ভরতপুরে। এর মধ্যে একটা বড় অংশই পরিযায়ি পাখি বা মাইগ্রেটরি বার্ড। শীতের মরসুমে পাড়ি জমায় পৃথিবীর নানা দেশ থেকে। পাখি ছাড়াও এ জঙ্গলে আছে কিছু হরিণ, নীলগাই, সম্বর, বুনো শুয়োর ও নানা প্রজাতির সাপ। কদম, বাবুল, জাম এ জঙ্গলের উল্লেখযোগ্য গাছ। এছাড়াও রয়েছে বেড়, কয়ের ও কুশ ঘাসের জঙ্গল। “পাখ-পাখালির গান শুনিগে চল/ ঝর্ণা ধারার মত পাখির শব্দ কলকল…” সকাল ৭টায় খোলে পাখিরালয়ের গেট। রিক্সায় চড়ে জঙ্গলের ভিতরে...
Rajasthan in 11 nights – 12 days

Rajasthan in 11 nights – 12 days

Rajasthan, The Land of Rajputs, is India’s largest state by area. Rajsthan is one of the most popular tourist destinations in india, for both domestic and international tourist. The palaces of Jaipur, lakes of Udaipur, and desert forts of Jodhpur, Bikaner & Jaisalmer are few among the most preferred destinations in Rajasthan. So, here you will get a budget friendly standard 11 nights 12 days plan (Jaipur to Jaipur) of Rajasthan consisting most of the major tourist attractions. In this plan you will get Palaces, Lakes, Deserts, Forts, Jungle and last but not the least Hill station. I always try to make a plan where maximum variety can be covered. In one hand we had stayed in hot desert (though in night it is as cold as in hill station) and on the other hand we had gone to the highest point of the Aravalli range, a hill station. Itinerary: Day 1 : Jaipur : You journey will start from Jaipur, the Pink City. First day, take some rest in your hotel after Check-in. In the evening you can go to the RTDC office to arrange the next day sightseeing. Night stay at hotel. Address of RTDC Registered office in Jaipur Paryatan Bhawan, 3rd Floor, Opposite Vidhayak Puri Police Station, M.I. Road, Jaipur- 302001 Contact No. : 0141-2371141, 2371142 E-Mail: croho@rtdc.in Day 2 : Jaipur Sightseeing : After having your breakfast, start for Jaipur City tour. In the first half you can visit Birla Mandir, Hawa Mahal, Jantar Mantar, City Palace. After that you can go to Nahargarh Fort and there you can have your lunch. In the second half you can visit...
জঙ্গলময় রাজস্থান – রনথম্ভোর ন্যাশনাল পার্ক

জঙ্গলময় রাজস্থান – রনথম্ভোর ন্যাশনাল পার্ক

জঙ্গলময় রাজস্থান – রনথম্ভোর ন্যাশনাল পার্ক রাজস্থান বলতেই মনে পড়ে কেল্লা, বালি, পাথর আর মরুভূমির কথা। কিন্তু জঙ্গল, বন্যপ্রাণ ও পক্ষীকুলের সম্ভার নিয়ে আরেকটা সবুজ অংশও রয়েছে এই বৈচিত্রময় রাজ্যে। ‘রেগিস্তান’এর ছবির আড়ালে পূর্ব রাজস্থানে রয়েছে তিনটি অনন্য অভয়ারণ্য – সরিস্কা, রনথম্ভোর ও ভরতপুর। কলকাতা থেকে ৮-১০ দিনের রাজস্থানের ট্যুর প্যাকেজে গিয়ে সাধারণত যা দেখা হয় না অধিকাংশ পর্যটকেরই। “Maati Baandhe Painjanee../ Bhangdi Pehne Baadli../ Dedo Dedo Baavdo../ Ghod Mathod Bhavdi…” চেনা চেনা ঠেকছে গানের লাইনগুলো? এটা রাজস্থান ট্যুরিজমের বিজ্ঞাপনের সেই সরকারি থিম সং। সেই বিজ্ঞাপনে একেক জন রাজস্থানকে দেখে একেকরকম ভাবে। এতই বৈচিত্রে ভরা রাজস্থান। মনমাতানো রাজস্থানী ফোক গানটির সাথে একাত্ম হয়েই আজ দেখে নেওয়া যাক বাঘ দেখার জন্য বিখ্যাত রনথম্ভোরের জঙ্গলকে। দক্ষিণ-পূর্ব রাজস্থানে সওয়াই মাধোপুর জেলায় বিন্ধ্য ও আরাবল্লী পাহাড়ে ঘেরা ৩৯২ বর্গ কিমি এলাকা জুড়ে রনথম্ভোর জাতীয় উদ্যান। উত্তর ভারতের বৃহত্তম জাতীয় উদ্যান গুলির মধ্যে একটি এই রনথম্ভোর। জয়পুর থেকে ১৩২কিমি ও কোটা থেকে ১১০কিমি দূরত্বে সওয়াই মাধোপুর শহর। সওয়াই মাধোপুর স্টেশন থেকে ১৪ কিমি দূরে পার্কের প্রবেশ দ্বার। অতীতে জয়পুরের মহারাজাদে র প্রিয় শিকার ভূমি ছিল রনথম্ভোর। ১৯৮০তে জাতীয় উদ্যানের স্বীকৃতি পায়। পাহাড় ঘেরা উঁচু নিচু ঢেউ খেলানো রুক্ষ জমিতে শুষ্ক পর্ণমোচী অরণ্য। বন দপ্তরের ক্যান্টারে চড়ে জঙ্গল সাফারি। জঙ্গলে দেখা মেলে সম্বর, নীলগাই, চিতল হরিণ, লেঙুর, বুনো শুয়োর ও অজস্র ময়ূর। এছাড়াও এজঙ্গলে আছে লেপার্ড, শ্লথ ভল্লুক, হায়েনা আর বিভিন্ন প্রজাতির পাখি ও সরীসৃপ। আর বনের রাজা বাঘ এ জঙ্গলের মূখ্য আকর্ষণ। বর্তমানে ৬০-৬৫ টি বাঘ আছে রনথম্ভোরে। জঙ্গলের ভিতরে রয়েছে তিনটি বিশাল লেক, যার মধ্যে পদম তালাও সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। তালাওয়ের কিনারে লাল বেলেপাথরে তৈরি যোগী মহল। অতীতের রাজমহল ও হান্টিং লজটি আজ একটি হেরিটেজ হোটেল। লেকের কাছেই আছে এক সুপ্রাচীন বট বৃক্ষ। শোনা...
জঙ্গলময় রাজস্থান – সারিস্কা টাইগার রিসার্ভ ও ন্যাশনাল পার্ক

জঙ্গলময় রাজস্থান – সারিস্কা টাইগার রিসার্ভ ও ন্যাশনাল পার্ক

জঙ্গলময় রাজস্থান – সারিস্কা টাইগার রিসার্ভ ও ন্যাশনাল পার্ক   রাজস্থান বলতেই মনে পড়ে কেল্লা, বালি, পাথর আর মরুভূমির কথা। কিন্তু জঙ্গল, বন্যপ্রাণ ও পক্ষীকুলের সম্ভার নিয়ে আরেকটা সবুজ অংশও রয়েছে এই বৈচিত্রময় রাজ্যে। ‘রেগিস্তান’এর ছবির আড়ালে পূর্ব রাজস্থানে রয়েছে তিনটি অনন্য অভয়ারণ্য – সরিস্কা, রনথম্ভোর ও ভরতপুর। কলকাতা থেকে ৮-১০ দিনের রাজস্থানের ট্যুর প্যাকেজে গিয়ে সাধারণত যা দেখা হয় না অধিকাংশ পর্যটকেরই। “Maati Baandhe Painjanee../ Bhangdi Pehne Baadli../ Dedo Dedo Baavdo../ Ghod Mathod Bhavdi…” চেনা চেনা ঠেকছে গানের লাইনগুলো? এটা রাজস্থান ট্যুরিজমের বিজ্ঞাপনের সেই সরকারি থিম সং। সেই বিজ্ঞাপনে একেক জন রাজস্থানকে দেখে একেকরকম ভাবে। এতই বৈচিত্রে ভরা রাজস্থান। মনমাতানো রাজস্থানী ফোক গানটির সাথে একাত্ম হয়েই আজ দেখে নেওয়া যাক আলোয়ার জেলায় আরাবল্লী পাহাড়ে ঘেরা ছবির মত সুন্দর ‘সারিস্কা ন্যাশনাল পার্ক’ কে। ২৭৩.৮ বর্গ কিমি কোর এলাকা নিয়ে অবস্থিত এই ‘সারিস্কা ন্যাশনাল পার্ক’। বাফার এলাকা ৮০০ বর্গ কিমি। আলোয়ার শহর থেকে ৩৭ কিমি ও দিল্লি থেকে ২০০ কিমি দূরে পার্কের গেটের অবস্থান। বন্যপ্রাণী দেখার এক আদর্শ স্থান এই সারিস্কার জঙ্গল। পাহাড় ঘেরা উঁচু নিচু, ঢেউ খেলানো বনভুমিতে হুড খোলা জিপসিতে চড়ে জঙ্গল সাফারি অত্যন্ত চিত্তাকর্ষক। এই অরণ্যে দেখা যায় অজস্র সম্বর, নীলগাই, চিতল, চতুরশৃঙ্গী, চিঙ্কারা সহ বিভিন্ন প্রজাতির অ্যান্টিলোপ (Antelope) ও লেঙ্গুর। পথের পাশে কখনও দেখা মেলে বুনো শুয়োর বা ওয়াইল্ড বোর, ওয়াইল্ড ক্যাট ও শিয়ালের। এছাড়া জঙ্গলে যত্রতত্র ঘুরে বেড়ায় ময়ূর। কখনও বা তারা গাড়ির সামনেই রাস্তা ধরে নাচতে নাচতে এগিয়ে চলে। এ তল্লাটে অবশ্য সর্বত্রই দেখা মেলে আমাদের জাতীয় পাখিটির। হিংস্র জন্তু বলতে লেপার্ড আর অবশ্যই বাঘ আছে এ জঙ্গলে। তবে বাঘ দেখার জন্য তেমন সুখ্যাতি নেই সারিস্কার। দেশের অনেক অভয়ারণ্যে ঘুরেছি। কিন্তু সারিস্কায় দুবারের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি যে জঙ্গল সাফারিতে এত বন্যপ্রাণী, বিশেষতঃ...
Top Five Off-beat destinations to visit in Rajasthan

Top Five Off-beat destinations to visit in Rajasthan

Top Five Off-beat destinations to visit in Rajasthan Rajasthan- The land of Maharajas, the land of versatile cultures,the land of sand dunes, the land of Havelies. When you are in Rajasthan you must visit some beautiful offbeat places. Here is a list of Top five offbeat places. 1. Tanot Tannot Basically a village, is close to the border with Pakistan. This is also a battle field of 1971 Indo-Pak war. There is a temple, popularly known as Tannot Mata Temple. Tourists cannot go beyond this temple to see the Indo–Pak Border unless one gets the relevant documentation in advance from the District and Military Authorities. This is one of the best place to explore Thar Desert. Location: The temple is some 153 kilometers (95 mi) from the City of Jaisalmer, and it takes about two hours to reach by road. Best time to visit: November to February History: It is said that during the Indo-Pakistani War of 1965, Pakistani Army dropped several bombs targeting the temple but none of the bombs could fall on the temple and large number of the bombs in the vicinity of the temple did not explode. After the war the temple management was handed over to Border Security Force of India. On date Border Security Force Jawans made the temple. The temple has a museum which has collections of the unexploded bombs dropped by Pakistan. What to see: Thar Desert,Tannot Mata Temple, War Memorial, Indo-Pak Border, Wind-based renewable energy projects. Note: Mobile networks are available upto Ramgarh. Route to follow: Jaisalmeer-Ramgarh-Tanot. Nearby city: Jaisalmer Staying Option: There is no staying option so you have to...