Parkha – A new offbeat destination in East Sikkim

Parkha – A new offbeat destination in East Sikkim

Reading Time: 4 minutesParkha – A new offbeat destination in East Sikkim Parkha is a small eco village lies in the eastern part of Sikkim (India)(Sikkim is India’s First Organic State).It is situated at an elevation of 5,000 feet above sea level. It is 150 km from NJP Railway Station and 170km away from Bagdogra Airport at Siliguri (WB). It takes 4 hr drive from Siliguri to reach Parkha. (one and half hour drive from Gangtok). On the way one can visit Saramsa Garden (also called as Epica Garden) highly decorated with natural flowers at Ranipool, and many other small falls as well. The name of the village PARKHA is Tibetan word (Parkha is a word used in Tibetan astrology,it is eight trigrims of Tibetan astrology )and in olden days the old silk route was also done from here with Tibet. Parkha village is (approx 60km) below Changu Lake and it is surrounded by green forest, small hills, rivers and streams as well. What to do at Parkha : One can experience the nature walk in and around village through forest trails , Parkha view point where entire village is seen from the top, Machong Monastry one of the oldest Monastery in Sikkim,Parkha Gurung Gumpa, Makhim At Rekyap, Barapathing Zheel and also experience the River walk , Buddha falls at rolep and do River bathing, swimming ,Ratey khola cave and many more. For the bird lovers one can experience the Himalayan bird which are found abundantly in the village and little above in the forest as well. Parkha sightseeing: One may visit Machong Monastery, the oldest monastery in Sikkim....
Borong – An offbeat Destination in South Sikkim

Borong – An offbeat Destination in South Sikkim

Reading Time: 3 minutes Borong – A Birder’s Paradise About 17 km from Ravangla, Borong is a small hamlet in south Sikkim which is mostly famous among the Ornithologists as it is filled with exotic flora and hundreds of chirping birds. There is a beautiful homestay nestled in the lap of nature, named Himalayan View Homestay. This Homestay is hosted by Manjeel Gurung who is still studying. All his family members are taking care of the problems of the guests. Himalayan View Homestay is located in the lap of snow peaks mountains with clear vision of Mt.Narsing, Pandim, Sinolchu and even Kanchenjunga. As the village is the paradise of lovely birds, you can find the varieties of birds chirriping from early morning itself. How to reach : From the town Ravangla, these Homestay is 18 kms away, which is far away from all the crowds and city life. Ravangla which is about 125kms from NJP railway station or Bagdogra airport. It will take nearly 5 hours to reach Ravangla from Bagdogra/NJP. From Ravangla, Borong is further 17kms (takes about 45 minutes by car). The small reserved taxi will charge you 1500 INR for a round trip to Borong from Ravangla. You can ask the homestay owner for pick up and drop from NJP. Best Time to Visit : Borong is enjoyable throughout the year. But if you want to experience the festival taking place at the bank of Rangeet River, then you must come in the month of February. Places to Visit nearby : On the way towards your destination, you can visit different spots like Buddha park, Ralong...
5 Offbeat Destinations for your Perfect Weekend Gateway

5 Offbeat Destinations for your Perfect Weekend Gateway

Reading Time: 9 minutes5 Offbeat destinations for your perfect Weekend gateway Written by Anindita and Sourav For most of us the best part of a week is weekends & we keep searching for weekend destinations to spend a few days away from the stressful daily life. But unfortunately now a days most of the common weekend gateways are so crowded that we miss the peaceful environment which we need to refresh our mind. So here we are suggesting you five offbeat destinations around kolkata with lesser crowd & more peace. 1. Vetnai (Wild life, Birds) Vetnai is a small lesser known village in Odisha’s Ganjam district. It is famous for Blackbuck. Here approximately 1600 blackbucks roam around freely. The landscapes and various types of birds will also lure you. If you have time, you can also add Monglajori bird sanctuary in your itinerary to view rare birds and some beautiful butterflies.   How to reach : You can take overnight train from Howrah to Brahmapur (Odisha). The convenient train is 12863 Howrah – Yesvantpur SuperFast Express which departs from howrah at 8.35 P.M. and arrives at Brahmapur (BAM) at 6 A.M. From Brahmapur there are regular bus services that can take you to Aska as well as Bhetnai. How to plan: Saturday : Reach Brahmapur in the morning and check-in to the Hotel. Then proceed to Vetnai by Auto. Return back to hotel in the evening. Sunday : You can stroll around the place or you may again go to Vetnai to observe Blackbuck. Or you can go to Pakidi village to see our national bird. After lunch you can go back to Brahmapur for night train....
Kotumsar Cave – Chattisgarh

Kotumsar Cave – Chattisgarh

Reading Time: 4 minutesKotumsar Cave – An ancient cave in Chattisgarh আদিম কালের চাঁদিম হিম content written by Subhamay Pal অন্ধকার বেশ গাঢ়, একটা হ্যাজাকের আলোয় অন্ধকার দূর দুরস্ত, বরং আরো জাঁকিয়ে বসছে। পায়ের তলায় থকথকে কাদা, জলও আছে ইতিউতি। দেয়ালগুলো দিয়ে জল চুঁইয়ে পড়ছে। নভেম্বরের শেষ, বাইরে মিষ্টি ঠান্ডা হাওয়া, মনোরম জঙ্গল আর ভেতরে অদ্ভুত গুমোট, হালকা বোটকা গন্ধ। একটা সরু শ্যাওলা মাখা পাহাড়ের দেওয়ালের খাঁজ গলে, তার গা ঘেঁষে ঢুকেছি এর ভেতরে, হুড়মুড় করে প্রায় অনেকটা নেমে এসে এই কাদা মাখা জায়গায় থিতু হয়েছি। বেশ খানিক্ষন পরে চোখ ধাতস্থ হলো, এগিয়ে চললাম গুহার ভেতরে। ১৯৯৩ নাগাদ এই চুনাপাথরের গুহাটি ও আরো দুটি গুহা আবিষ্কার হয় এই সুন্দর নির্জন, ঘন জঙ্গলাবৃত কাঙ্গার ভ্যালি ন্যাশনাল পার্কের ভেতর। এই অঞ্চলটা ক্ষয়জাত পর্বত ও মালভূমির অপরূপ ভূমিরূপ সমৃদ্ধ। গুহাগুলি কোলাব নদীর শাখানদী কাঙ্গার এর কাছাকাছি বিখ্যাত কাঙ্গার লাইমস্টোন বেল্টে অবস্থিত। যে গুহার ভেতর সেঁধিয়েছি তার প্রথমে নাম ছিল গোপনসার কেভ; কিন্তু পরে কুটুমসার নামে বেশি বিখ্যাত হয় কাছাকাছি একটি গ্রাম কুটুমসারের নামে। এছাড়া কাছাকাছি একটি ছোট পাহাড়ের মাথায় আছে কৈলাশ গুফা বা কেভ। জুন থেকে অক্টোবর জলে ভরে থাকে এই গুহাগুলো, নভেম্বরেও জল থাকে অনেকসময়, কুটুমসারে ঢোকা গেলেও কৈলাশ গুফা তখনও বন্ধ। বস্তার অঞ্চল বায়োডাইভার্সিটির এক প্রকৃষ্ট উদাহরণ। ক্ষয়জাত পর্বত, অসাধারণ সুন্দর ঝর্ণা ( তিরথগর, চিত্রকূট ), মালভূমির লালে ঘন সবুজের ছোপ। তবে এই গুহাগুলো হলো এই অঞ্চলের সবথেকে আকর্ষণীয় প্রাকৃতিক দ্রষ্টব্য। গুহাটি ছত্তিসগড়ের বস্তার জেলার জগদলপুর থেকে ৪০ কিমি মতো দূরে, কাছেই তিরথগর ফলস। প্রধান গুহাটি প্রায় ২০০ মিটার লম্বা, এছাড়াও সমান্তরাল ও লম্বালম্বি বেশ কিছু গলি চলে গেছে বিভিন্নদিকে। ভাইজাগ থেকে কিরণডৌল প্যাসেঞ্জার এ পূর্বঘাট ভেদ করে উড়িষ্যার অসাধারণ খনিজ অঞ্চল পেরিয়ে বিকেলে জগদলপুর বা রায়পুর পর্যন্ত ট্রেনে এসে...
Mechuka – A Hidden Paradise in Arunachal Pradesh

Mechuka – A Hidden Paradise in Arunachal Pradesh

Reading Time: 17 minutesঅরুণাচলের মেচুকায়…মেম্বাদের দেশে বছর  তিনেক  আগে এয়ারফোর্সে কর্মরত  আমার এক বন্ধুর কাছে প্রথম মেচুকার কথা জানতে পারি। পূর্ব অরুনাচলের ওয়েস্ট কামেং জেলায় ভারত-চিন সীমান্ত ম্যাকমোহন লাইন থেকে  মাত্র ২৯ কিমি আগে চারদিকে পাহাড় ঘেরা একটা ভ্যালি, মেচুকা।ভ্যালির মাঝখান দিয়ে ইয়ারগ্যাপ ছু নদী বয়ে গেছে। মেম্বা আর অন্য কিছু আদি উপজাতিদের বাস। শুনলাম সেখানে যাওয়া বেশ ঝামেলার, রাস্তাও দুর্গম। ভেবেছিলাম পরে কখনো রাস্তাঘাট ভাল হলে যাওয়া যাবে। কিন্তু ছবিগুলো দেখে আর গল্প  শুনে বেশ  দোটানায়  পরে গেলাম।যাব কি যাব না! অবশেষে কয়েকমাস আগে ইউটিউবে মেচুকার একটা ভিডিও দেখে মেচুকা অভিযানের সিদ্ধান্তে সিলমোহর দেওয়া হল। বিভিন্ন সূত্র থেকে যত বেশি সম্ভব তথ্য নিয়ে পারমিট জোগাড় করে মে মাসের শেষ সপ্তাহে যাত্রা শুরু করলাম।অরুণাচলের ইনারলাইন পারমিটের জন্যে যে কেউ অনলাইনে(http://arunachalilp.com/index.jsp) আবেদন করতে পারেন। কলকাতা থেকে মেচুকা যেতে গেলে এই মুহুর্তে সবথেকে সুবিধাজনক উপায় হল কিছুদিন আগে চালু হওয়া এয়ার ইন্ডিয়ার ফ্লাইটে পাসিঘাট চলে যাওয়া।কিন্তু এই পরিষেবা শুরু হওয়ার আগেই আমি ডিব্রুগড়ের টিকিট কেটে ফেলেছিলাম। সেখান থেকে স্টিমারে ব্রহ্মপুত্র নদ পার করে পাসিঘাট ও আলং হয়ে মেচুকা।আমার পরিচিত একজনের কাছ থেকে ডিব্রুগড় থেকে একটা ইনোভা গাড়ি ভাড়া করেছিলাম। দিনপ্রতি ৪৫০০ টাকা নিয়েছিল।পাসিঘাট থেকে আলো, আলো থেকে মেচুকা লোকাল সুমো সার্ভিস আছে। সকাল ৫টা থেকে ৫:৩০ এর মধ্যে সুমো ছাড়ে। আগের দিন সুমোর সিট রীসার্ভ করতে হয়।পাসিঘাট থেকে আলোর জনপ্রতি ভাড়া ৫০০ টাকা আর আলো থেকে মেচুকার ভাড়া ৬০০ টাকা। তবে নিজেদের ভাড়া গাড়ি সাথে রাখলে কোথাও গিয়ে আশপাশের জায়গাগুলোকেও ভাল করে ঘুরে দেখে নেওয়া যাবে। অরুনাচলের এই অংশে ঘোরার ক্ষেত্রে আমার মনে হয়েছে পরিবার নিয়ে ছুটি কাটাতে গেলে ও নিজস্ব যোগাযোগ না থাকলে ভাল কোন ট্রাভেল অপারেটরদের সাথে যাওয়াই ঠিক হবে।যদিও এটা আমার ব্যাক্তিগত মতামত। II ডিব্রুগড় ও পাসিঘাটের দিনলিপি...