Nimpith and Kaikhali trip guide

Nimpith and Kaikhali trip guide
Reading Time: 4 minutes

Nimpith and Kaikhali – tourist spot near kolkata


আগের উইকএন্ডে দেওঘর থেকে ঘুরে আসার পর শনিবার সকালে উঠেই আবার মনে হল শীতকালে ছুটির দিনগুলো বাড়ি বসে নষ্ট হতে দেওয়া কি ঠিক? কাছে পিঠেই নাহয় কোথাও ঘুরে আসি। আমার যে ‘পায়ের তলায় সর্ষে’। কোন আগাম প্ল্যান ছিল না। তাই একদিনেই ফিরে আসার মত জায়গার কথা ভাবতে গিয়ে মনে এল নিমপিঠ ও মাতলা নদীর ধারে কৈখালির নাম। শিয়ালদা থেকে দুজনে চেপে বসলাম লক্ষীকান্তপুর লোকালে। প্রথম গন্তব্য জয়নগর। শিয়ালদা সাউথ সেকশনের ট্রেনের ভিড়ের কথা সকলেরই জানা। ১ ঘন্টা ২০ মিনিটের ট্রেন যাত্রায় পৌঁছলাম জয়নগর-মজিলপুর স্টেশনে। স্টেশনের বাইরে এসে শেয়ার অটো ধরে মিনিট দশেকে নিমপিঠ (Nimpith) রামকৃষ্ণ আশ্রম।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park

Nimpith Ashram

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park

Colourful Seasonal Flowers, Nimpith Ashram

বেলুড় মঠের আদলে তৈরি সুন্দর মন্দির ও সমগ্র কম্পাউন্ড জুড়ে নানান রঙ বেরঙের মরসুমি ফুলের বাহার। রয়েছে স্কুল। দুপুর হয়ে গেছে। কম্পাউন্ডের একপাশে পাতা সার সার টেবিল চেয়ারে বসে অনেক মানুষ। জানা গেল একটু বাদেই খাবার বিতরণ হবে। ভিতরের অফিস ঘর থেকে কুপন কেটে আমরাও বসে পড়লাম দুটি চেয়ারে বাকিদের সাথে। এই আশ্রমে প্রতিদিন শতাধিক মানুষের আহারের আয়োজন করা হয়। বসে থাকা ভোজনার্থীদের মধ্যে যেমন স্থানীয় পড়ুয়া রয়েছে, তেমনই কুপন কেটে আমাদের মত কলকাতা থেকে আসা ভ্রমণার্থীও আছে।



নিরামিষ আহার পর্ব সারার পর আশ্রমের অফিস ঘরে গিয়ে খোঁজ নিলাম মাতলা নদীর পাড়ের কৈখালির। শুনেছিলাম সেখানে এদেরই আরেকটি আশ্রম ও আশ্রম পরিচালিত পর্যটক আবাস আছে। জানতে চাওয়া হল আমরা সেখানে রাত্রিবাস করব কিনা। দিনে দিনে ঘুরে আসার প্ল্যানের কথা জানাতে আশ্রমের এক সন্ন্যাসী পরামর্শ দিলেন অটো রিসার্ভ করে ঘুরে আসতে। সেই মত গেটের বাইরে থেকে একটি অটোর সাথে ৫০০টাকায় চুক্তি হল যে আমাদের কৈখালি ঘুরিয়ে নিয়ে এসে সন্ধ্যেবেলা জয়নগর স্টেশনে ছেড়ে দেবে।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park

River Matla, Kaikhali

নিমপিঠ থেকে কৈখালি ও মাতলা নদী

নিমপিঠ থেকে কৈখালি ৩৮কিমি। অটোতে প্রায় দেড় ঘন্টা সময় লাগে। আধা শহর, গ্রাম, বাজার এলাকা, মাঠ ঘাট, চাষের জমি পেরিয়ে পৌনে তিনটে নাগাদ পৌঁছলাম কৈখালি। একপাশে আশ্রম ও আরেক পাশে পর্যটক আবাস। আর সামনে এক টুকরো ম্যানগ্রোভ ফরেস্টের ওপাশে মাতলা নদী। বিশাল মাতলা নদী। কি তার ব্যাপ্তি। নদীর বুকে ভাসমান কয়েকটি জেলে নৌকা ও লঞ্চ। নদী এতটাই চওড়া যে ওপারের ডাঙা প্রায় দেখাই যায় না। ওপারে বহু দূরে দুটো আবছা রেখা আসলে সুন্দরবনের দূটো দ্বীপ। ওপারেই নাকি সুন্দরবনের ঝড়খালি। লঞ্চ যাচ্ছে কৈখালি থেকে। আরেকটি ছোট নদী এই স্থানে মাতলায় মিশেছে। দুটি নদীর সঙ্গম স্থলেই কৈখালি। শীতের মিঠে রোদ গায়ে মেখে বাঁধানো পাড়ে বসে সামনে মাতলার শোভা দেখতে বেশ লাগছিল। নদীর পাড়ে চলছে শীতকালীন পিকনিক।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

River Matla, Kaikhali



Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

Matla River bed and the Mangrove Forest, Kaikhali

নদীর ধারে বেশ বড় দোতলা পর্যটক আবাসটি খুব ভাল লাগল। নিমপিঠ আশ্রম থেকে এখানে থাকার জন্য বুকিং হয়। নির্জন পরিবেশে মাতলার পাড়ের এই ট্যুরিস্ট লজে এক রাত কাটানোর খুব ইচ্ছে রইল পরেরবার। কৈখালির রামকৃষ্ণ আশ্রমটি অনেকখানি জায়গা জুড়ে বড় কম্পাউন্ডে। গাছগাছালিতে ঢাকা শান্ত পরিবেশে মন্দির। ভিতরে রয়েছে দুটি পুকুর। কম্পাউন্ডের লাগোয়া সরকারি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের নব নির্মিত বিশাল বাড়ি।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

Kaikhali Ramakrishna Ashram

আশ্রম দেখে চললাম এবার নদীপাড়ের জেটি ঘাটে। এখান থেকে মাতলা ও তার মোহনার দৃশ্য খুব সুন্দর। একপাশে নদীর পাড়ে ম্যানগ্রোভের এক টুকরো হালকা জঙ্গল। নদীর বুকে অনেক নৌকা। ভাটার সময় বলে নদীর পাড়ে একফালি কাদাময় চড়া। ওপারের কোন দ্বীপ থেকে দুটি লঞ্চ এসে ভিড়ল জেটি ঘাটে। অনেক লোক নামল এপারে এসে। অনেকে আবার এগিয়ে গেল জয়নগর থেকে কলকাতা ফেরার ট্রেন ধরতে।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

The Jetty and the Confluence of River Matla, Kaikhali



Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

Afternoon Sun, Kaikhali

সূর্য পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়েছে। নদীর জলে তার প্রতিফলন। মাতলাকে এবারের মত বিদায় জানিয়ে আমরাও ফিরতি পথ ধরলাম। আবার দেড় ঘন্টা অটো চড়ে নিমপিঠ। সন্ধ্যের সময় আশ্রমের মন্দির দর্শন করে এবার সোজা জয়নগর স্টেশন। তবে শিয়ালদার ট্রেন ধরার আগে অটোওয়ালাকে জিজ্ঞেস করে পৌঁছে গেলাম স্টেশনের কাছেই একটি মোয়ার দোকানে। শীতকালে জয়নগরে গিয়ে বিখ্যাত মোয়া না নিলে কি চলে? সামনে তৈরি হতে দেখা হাতে গরম টাটকা ‘জয়নগরের মোয়া’ কিনে তারপর বাড়ি ফেরার ট্রেন ধরা।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

Reflection of the Dusk, near Nimpith Ashram

কিছু তথ্যঃ

কৈখালিতে থাকার একমাত্র জায়গা রামকৃষ্ণ আশ্রম পরিচালিত পর্যটক আবাস। কৈখালির পর্যটক আবাসের বুকিং হয় নিমপিঠ আশ্রমে ফোন করে। থাকা-খাওয়ার খরচ মাথাপিছু ৫৫০টাকা। ফ্যামিলি ছাড়া বুকিং নেওয়া হয় না। পর্যটক আবাসে অগ্রিম বুকিং না থাকলে কৈখালিতে তেমন খাবারের জায়গাও নেই।

Nimpith and Kaikhali the gateway of sundarban national park, picnic place

Kaikhali Tourist Lodge

Contact Number

নিমপিঠ আশ্রমে যোগাযোগের নম্বরঃ 9933064466

 


Content and Photography by Subhrangsu Dasgupta







Read this to know more about weekend trip

Weekend tourist places in kolkata

3 Comments

  1. Interesting, to-the-point description. Please give more information about “Day trips”

    Reply
  2. বেশ লাগলো। অনেক ধন্যবাদ।

    Reply
  3. Your article is well written & informative. Thanks for your blog. Just one thing to ask,if Kaikhali is accessible by own car ?
    Photography is also good specially the ones of river etc.

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisement