কংক্রিটের আঁকার খাতায় কলকাতার আলতামিরা – A Photoblog on Wallart at Kolkata

কংক্রিটের আঁকার খাতায় কলকাতার আলতামিরা – A Photoblog on Wallart at Kolkata

Reading Time: 4 minutesকলকাতার অলিতে গলিতে আঁকার খাতার সন্ধানে :  সত্যজিৎ রায়ের আগন্তুক সিনেমায় বর্ণিত সেই আলতামিরার কথা মনে আছে? আলতামিরা মানে পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম প্রাচীন গুহা। হ্যাঁ উৎপল দত্তের মুখে আমরা জানতে পারি স্পেনের আলতামিরার সেই বিস্ময় গুহাচিত্রের কথা।যুগ যুগ ধরে এই চিত্রকলা নিজের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করে গুহার অন্ধকূপ থেকে আজকে বেরিয়ে পড়েছে অত্যাধুনিক জগতে। তারই এক শাখা আমাদের সামনে উঠে এসেছে দেওয়াল অংকন হিসেবে। দেওয়াল অঙ্কন কে আমরা ম্যুরাল নামে চিহ্নিত করি। ম্যুরালের আধিক্য দেখতে পাই ঈজীপসিও সভ্যতায়। তবে ম্যুরালের প্রচলন সবথেকে বেশি হতো মেক্সিকোর চিত্রকলা বিপ্লবে। ভারতবর্ষে এরই একটা রূপ আমরা অজন্তা ইলোরা বা মধ্যপ্রদেশের ভীমবেটকায় দেখতে পাই। আজকালকার দিনে দেওয়াল চিত্রের মাধ্যমে শিল্পী তার শিল্প জ্ঞান ফুটিয়ে তোলে। কখনো তা রাজনৈতিক কখনো বা সামাজিক বা ধর্মীয় বাতাবরণ বহন করে। ভারতবর্ষের বিভিন্ন শহর যেমন মুম্বাই দিল্লিতে এই দেওয়ালচিত্র বহুলভাবে প্রচলিত। তাহলে আমাদের কলকাতাই বা বাদ যায় কেন? আমাদের চোখের সামনেই সব ঘটে যায় কিন্তু তবুও আমরা এই সুন্দরের প্রতি অন্ধ থেকে যাই।কলকাতা শহরেও বিক্ষিপ্তভাবে বহু জায়গায় দেওয়াল চিত্রের পসরা দেখা যায়। উত্তর কলকাতা থেকে দক্ষিণ সর্বত্র এই চিত্রকলা শিল্পীর হাতের টান মাঝে মাঝেই আমাদের চোখকে আরাম দেয়। আমরা সেগুলো কে নিছক দেয়াল লিখন বলে অগ্রাহ্য করে যাই। কিন্তু গভীর ভাবে দেখলে অনেক কিছুই আমাদের মনে গেঁথে যায়।অনেক না বলা, না দেখা ছবি হয়তো অনামি দেওয়ালে আঁকা থাকায় আমরা সেটাকে এড়িয়ে যাই কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সেইসব ছবিগুলি বহু কথা আকাশে বাতাসে ছড়িয়ে দেয়। কয়েকমাসের প্রচেষ্টায় আমি আর আমার দুই সহকর্মী বন্ধু ঘুরে বেড়িয়েছি কলকাতার রাস্তায়। অলিতে গলিতে। এই দেওয়াল চিত্রকলার সন্ধানে। মধ্য কলকাতার মারকুইস স্ট্রিট আবার কখনো টোটি লেনে বসে থেকেছি। কখনো ছুটির দিনে দুপুরের ভাত-ঘুম কে উপেক্ষা করে ঘুরে বেড়িয়েছি উত্তর কলকাতার অলিতে গলিতে। আবার শত...
Weekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi

Weekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi

Reading Time: 8 minutesWeekend tour : Ranchi tourism and Hotels in Ranchi সপ্তাহান্তে রাঁচিতে দুদিন  content by Mr. Subhrangsu Dasgupta অফিসে কাজের চাপে পাগল পাগল অবস্থা। সে চাপ কাটিয়ে কোথাও একটু ঘুরে আসতে মন চায়। সেই ভেবে শীতের শুরুর উইকএন্ডে ঠিক করলাম রাঁচীই ঘুরে আসি। শনি রবি দুদিনের ট্যুর। মূলত ছোট নাগপুর মালভুমির প্রকৃতির মাঝে রাঁচীর আশেপাশের বিখ্যাত জলপ্রপাতগুলির দর্শন। হুড্রু, জোনা, সীতা ও দশম ফলস, সাথে উপরি ড্যাম ও মন্দির সহ আরো কিছু দ্রষ্টব্য স্থান। শুক্রবার রাতে হাওড়া থেকে হাতিয়া এক্সপ্রেস (বর্তমান নাম ক্রীয়াযোগা এক্সপ্রেস) ধরে রওনা হলাম দুজনায়। তিন ঘন্টা লেটে রাত সোয়া একটায় ছাড়ল সে ট্রেন। সকালে ঘুম ভাঙতে দেখি ট্রেন ‘মুরি’ স্টেশনে দাঁড়িয়ে। মনে পড়ে যায় ‘চারমূর্তি’ সিনেমায় ঘুটঘুটানন্দের সেই মুরি। এখানে আছে হিন্ডালকোর অ্যালুমিনিয়াম প্লান্ট, যার কো-জেন পাওয়ার প্রোজেক্টের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাথে যুক্ত ছিলাম কর্মজীবনের প্রথম দিকে। মুরিতে ইঞ্জিন বদল করে উল্টোদিকে চলতে থাকে ট্রেন। অনেকেরই জানা মুরি থেকে রাঁচীর ঘন্টা দেড়েকের রেল যাত্রা পাহাড় ও জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে বেশ মনোরম। গঙ্গাঘাট, টাটিসিলওয়াই, নামকুম পেরিয়ে রাঁচী (Ranchi) পৌঁছতে পৌনে দশটা বেজে গেল। প্রথম দিনঃ স্টেশনের কাছেই হোটেল অম্রিতে (Hotel Amrit) কথা বলা ছিল। এশহরে কিছু আত্মীয়ের বাড়ি থাকলেও, যেহেতু ঘোরার উদ্দেশে আসা, তাই হোটেলেই থাকব ঠিক করেছিলাম। হোটেলে আমাদের জন্য গাড়ি নিয়ে আগে থেকেই অপেক্ষা করছিল রাজেশ কুমার। আত্মীয়দের মাধ্যমেই তাদের পরিচিত ড্রাইভার রাজেশের গাড়ির ব্যবস্থা হয়ছিল। এই দুদিন সেই আমাদের সব ঘোরাবে। হোটেলের ঘরে চটপট স্নান ও ব্রেকফাস্ট সেরে এগারোটা নাগাদ বেরিয়ে পড়লাম রাজেশের গাড়িতে, ফলস দেখার উদ্দেশে। এখানে বলে রাখি জলপ্রপাতগুলি রাঁচী শহর থেকে কিছুটা দূরে দূরে। আবার হুড্রু, জোনা যেদিকে দশম ফলস তার একেবারে অন্য দিকে। অনেকটা ওঠা নামা করতে হয় বলে প্রতিটা ফলস দেখতে অনেকটা সময়ও লেগে যায়। তাই সব কটি...
When I had only 60 hours to spend in the nation’s capital- A Travelogue

When I had only 60 hours to spend in the nation’s capital- A Travelogue

Reading Time: 9 minutesWhen I had only 60 hours to spend in the nation’s capital This was a part of the trip we made to Uttarakhand-Delhi in June 2015. It was a family trip consisting of seven members. I strongly insisted on adding the nation’s capital in our itinerary even though many members have already been there. After continuing requests, the proposal got accepted but only 3 days were kept for Delhi. It was a long wait that finally came ended when the Dehradum-New Delhi Janshatabdi Express reached The New Delhi Station. Upon reaching the Station, one would find ample of people trying to offer you cab rides and even willing to take you to a hotel. Beware of such people and their traps. Try to be very cautious in this station with your belongings. We pre-booked Hotel Maanvi from Kolkata itself. I used my phone GPS to find out the actual distance of the hotel from the station. It found it to be close and it was indeed. We opted for three autos to reach our hotel located at Arakashan Road, Pahargunj in the road just opposite to the station. In this regard, I would like to let you know that try to hire autos by fixing the fare before the ride. Because in most cases, they cheat the travellers by taking longer routes purposely to charge a higher fare in the meter. We were previously told about this and we followed the same advice throughout. Once we reached the hotel, we sat in the waiting space and after the formalities were done we finally reached our room....
New Delhi: See the city by Metro Railway

New Delhi: See the city by Metro Railway

Reading Time: 4 minutesNew Delhi: See the city by Metro Railway New Delhi is the capital of India, is famous for its incomparable architectures and gardens. From very beginning many sultans,kings and finally British shifted there capital form other places to Delhi. So day by day Delhi enriched by various kind of architectures and gardens. These architectures and gardens in different corner of Delhi are main attraction between tourists. Before December 2002(Delhi Metro Began operation) it was hard to visit all the places smoothly but when Delhi Metro service Began operation now all those places are easily accessible. List of Places and there distance from respective Metro Stations: Qutub Minar (2 km): Get down at Qutub Minar Metro Station on the Yellow Line, then take an Auto rickshaw,it will take only 5 minutes to reach. Humayun’s Tomb (4 Km or 2 km): Either get off at Jor Bagh Station on the Yellow Line and exit from Gate no 2 and then take an auto through Lodi Road or get off at the Khan Market Station or Jawhar Lal Neheru Stadium Station on the Violet Line and take an Auto or walk to Humayun’s Tomb. Safdarjung Tomb (100 meter): Get off at the Jor Bagh Station on the Yellow Line and exit from Gate no. 2 then walk towards the Lodi Road red light and it is on your left on the red light itself. Lodi Garden (1 km): Get off at Jor Bagh Station on the Yellow Line and exit from Gate no 2. Walk towards the Lodi Road Red light and take a right at the red light. Walk along the heavily tree covered Lodi Road and after...