বুদ্ধগয়া ভ্রমণ

বুদ্ধগয়া ভ্রমণ

বুদ্ধগয়া ভ্রমণ By..Soumitra Bhattacharjee সপ্তাহান্তে ঘুরতে যেতে চান, হাতে দু তিন দিনের ছুটি , কোথায় যাবেন ভাবছেন, আসুন কলকাতা থেকে সল্প দূরত্বের কিছু স্পট প্রতি সপ্তাহে আমরা আপনাদের সামনে তুলে ধরব। ভালো লাগলে শেয়ার করে আর লাইক দিয়ে উৎসাহ দেবেন। *******প্রথম পর্ব******** বৈশাখী পূণিমা উপলক্ষে ১৩৪২ বঙ্গাব্দে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অকুন্ঠ শ্রদ্ধাভরে বলেছেন, আমি যাকে অন্তরের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব বলে উপলদ্ধি করি, আজ এই বৈশাখী পূণিমায় তাঁর জন্মোৎসবে আমার প্রণাম নিবেদন করতে এসেছি।কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অন্তরে ’যাঁকে সর্বশ্রেষ্ঠ মানব বলে উপলদ্ধি করেছিলেন , তিনি হলেন মহামানব গৌতম বুদ্ধ।মহামানব গৌতম বুদ্ধের জীবনের সঙ্গে যে চারটি স্থান অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত বুদ্ধগয়া তাদের মধ্যে অন্যতম। এই বুদ্ধগয়ার নিরাঞ্জনা নদীর তীরে আজ থেকে ২৫৫০ বছর পূর্বে বোধিপ্রাপ্ত হয়েছিলেন তিনি। তাই আজও সারা বিশ্বের বৌদ্ধধর্মালম্বী জনগনের কাছে বুদ্ধগয়া এক মহান তীর্থস্থান। বলা হয় নেপালের কপিলাবস্তুর এক শাক্য বংশে বুদ্ধদেবের জন্ম হয় | তবে তাঁর জন্ম স্থান অবশ্য কপিলাবস্তু নয়, প্রাচীন লুম্বিনী বা বর্তমান রুম্মিনদেঈ গ্রাম তাঁর জন্ম স্থান | তাঁর পিতা শুদ্ধোদন,মা মায়াদেবী | গৌতমের জন্মের সাতদিনের পর তাঁর মা মারা যান | এরপর তিনি তাঁর বিমাতা তথা মাসী প্রজাপতি গৌতমীর কাছে মানুষ হন | কোনো কোনো ঐতিহাসিক মনে করেন গৌতমী মাসির কাছে মানুষ হওয়ায় তাঁর নাম গৌতম | তবে বেশির ভাগ ঐতিহাসিক মনে করেন গৌতম গোত্রে জন্ম হওয়ায় তিনি গৌতম | তাঁর পিতৃ দত্তা নাম ছিল সিদ্ধা র্থ | তাঁর জন্মকালে সকলের ইচছাপূরণ হয়েছিল তাই এরুপ নামকরণ করা হয় বলে মনে করা হয় | শাক্যবংশে জন্ম করেন বলে তাঁকে শাক্যসিংহ বলা হয় | সম্যকজ্ঞানলাভের পর তাঁর বুদ্ধ নামকরণ হয় | সুত্তনিপাতে বলা হয়েছে, গৃহীজীবন বন্ধনময়, দুঃখ কষ্টে ভরা | এই জীবনের প্রতি গৌতমের বিতৃষ্ণা জন্মে এবং এর ফলেই তিনি সন্ন্যাস নেন | ললিত বিস্তারে বলা...
আলস্যের আউলিতে

আলস্যের আউলিতে

  জোশিমঠথেকে সোজা রাস্তা চলে গেছে আরও দূরে বদ্রীনাথের দিকে। কপালে পুণ্যিটুন্যি বিশেষ নেইও আমার। তাই এখান থেকে গাড়ি ঘুরল উপর পানে। আঁকাবাঁকা এ পথ চলে গেছে আরও ১৬ কিলোমিটার দূরে আউলির দিকে। আপাতত গন্তব্য আমার ঐখানে। আরে ভাই, ওটা তো একটা স্কি রিসোর্ট। বরফের ওপর স্কি করতেই সবাই যায় ওখানে। বিদেশিদের ভিড় ই বেশি। আলুপোস্ত খাওয়া ভেতো বাঙালী তুমি ওখানে গিয়ে কি করবে শুনি? তার ওপর আবার ভাঙা কোমর নিয়ে? এমনতর হাজার প্রশ্নের স্রেফ একটাই উত্তর আমার। যাবো আউলিতে একটু আলিস্যি করতে। করুক না সবাই স্কি টি বরফের ওপর। আমি না হয় ততক্ষন কুঁড়েমি করে শুয়ে বসে অপার হিমালয়ের অপরূপ রূপ দর্শন করি। শুরুতেই বিপত্তি। পথ জুড়ে বরফের আস্তরন। একজন আর্মির ভদ্রলোক ওপর থেকে নেমে আসছিলেন। আমাদের চালক শুধল তাকে, পথ কি খোলা না বন্ধ? একগাল হেঁসে মানুষটি জানালেন বিশুদ্ধ হিন্দিতে, কাল তক তো সড়ক বন্ধই থা। বহুত বরফ গিরা থা। লেকিন আজ খুল গিয়া রাস্তা। সাবধানী সে যাও। এই বলে তিনি ওপরের দিকে নাকি স্বর্গের রাস্তার দিকে আঙুল দেখিয়ে দিলেন। অত্যন্ত অনিচ্ছায় ড্রাইভার একবার আমার সর্বাঙ্গ মেপে নিয়ে গিয়ার মেরে গাড়ি চালু করলেন। তার ইচ্ছে ছিল জোশিমঠেই ঘাঁটি গাড়া এবং আমাদের রোপওয়ে দিয়ে পাঠিয়ে দেওয়া। সহযাত্রীরা তো আরও বিরক্ত আমার ওপর। একে ঠাণ্ডা, তায় বরফ, তার ওপর সরু রাস্তা, প্রান রাখার কি বিন্দুমাত্র ইচ্ছে আমার নেই? কারুর গোঁফ গেছে ঝুলে, উদ্বেগে আর আমার ওপর রাগে। কারুর বা লিপস্টিক ফ্যাকাশে। এমন বেখেয়ালে বাউন্ডুলে ঘোরাফেরা তাঁদের বিলকুল না পসন্দ। কিন্তু ঐ যে বরফের পাহাড়শ্রেণী উঁচু হয়ে আমাকে হাতছানি দিচ্ছে, পাগল করা রূপ নিয়ে। যেতে তো আমাকে হবেই। বেশ একরোখা হয়েই বললাম, চলিয়ে ড্রাইভার সাহাব, সাবধানী সে চলিয়ে। আউলি তো আ গিয়া হ্যায়। সব হতাশায় জল ঢেলে এগিয়ে চললাম যেন...
দক্ষিণ কলকাতার কিছু পুজো দেখতে যাবার Route Map – শুভব্রত সান্যাল

দক্ষিণ কলকাতার কিছু পুজো দেখতে যাবার Route Map – শুভব্রত সান্যাল

আজ আলোচনা করবো একট দক্ষিণ কলকাতার দুর্গা ঠাকুর দেখার ব্যাপারে। যে ঠাকুর গুলো আমরা দেখতে চলেছি এই তালিকায় সেগুলোর মধ্যে কোনো প্যান্ডেল সনাতনী ঐতিহ্যের ধারক কোনোটি অপরূপ শিল্প সুষমায় উজ্জ্বল। আবার কোনটি শিল্পের মাধুর্য বজায় রেখেও সনাতনী মায়ের রূপ বজায় রেখেছে। আসুন শুরু করি… রুট প্ল্যান 1 শিয়ালদাহ স্টেশনের দক্ষিণ শাখা থেকে বজবজ বাদে যে কোনো ট্রেন ধরে আমরা সহজেই পৌঁছে যাব ঢাকুরিয়া স্টেশন। line পাল্টে রাস্তায় এসে গলি দিয়ে মিনিট পাঁচেক এগোলেই আমরা পাবো বাবুবাগান। দেখে নিয়ে একটু সংলগ্ন মাঠে খাওয়া দাওয়া করে আমরা বান্ধব সম্মেলনী দেখে main road এ এসে একটু খানি হেঁটেই চলে যাবো সেলিমপুর পল্লী। পল্লী দেখে আবার main road এ এসে রাস্তা পেরিয়ে আমরা পাবো যোধপুর পার্ক। আর তার সমান্তরাল রাস্তায় 95 পল্লী, দেখা শেষ। আবার বড় রাস্তায় এসে বাস ধরবো বালিগঞ্জ যাওয়ার,অনেক বাস পাবো। নামবো গড়িয়াহাট ব্রীজ পেরিয়ে pantaloons এর সামনে। পিছিয়ে এসে দেখে নেব সিংহী পার্ক। কিছুটা পাশে হিন্দুস্থান পার্ক,এরপর একডালিয়া ফাল্গুনী সঙ্ঘ দেখে বালিগঞ্জ স্টেশন দিয়ে বাড়ি। রুট প্ল্যান 2 Sealdah station থেকে বজবজ গামী ট্রেনে new alipore নেবে একটু খানি হেঁটেই পাবো দক্ষিণ কলকাতার বড় পুজো সুরুচি সঙ্ঘ। দেখা হয়ে গেলে auto 20 টাকা প্রতিজন বা min 20 হেঁটে আপনি পৌঁছে যান আর এক বড় পুজো চেতলা অগ্রণী। এর পর ধরুন রাসবিহারী avenue, কালীঘাট মন্দিরের কাছে আসতেই আপনি পেয়ে যাবেন বাদামতলা আষাঢ় সঙ্ঘ ও 66 পল্লী। দুটোই একদম পাশাপাশি। আরো কিছুটা এগিয়ে আসুন, চার রাস্তার মোড়, ডান দিকে গেলে পাবেন শিবমন্দির ও মুদিয়ালি। এই দুই ঠাকুরের মধ্যবর্তী রাস্তার নাম জানেন? রজনী সেন রোড, চেনা চেনা লাগছে?? লাগবেই তো, আমাদের কিশোর জীবনের চির সাথী ফেলুদার বাড়ি ই তো 21 রজনী সেন রোড। যদিও বাস্তবে 21A আর 21B আছে। রাস্তা দিয়ে হাঁটুন,...
হিমাচলের কয়েকদিন

হিমাচলের কয়েকদিন

‘হিমাচলের কয়েকদিন’ (প্রথম পর্ব) ১লা মার্চ, ২০১৮। আজ দোল। নেট ঘেঁটে ঘেঁটে সিমলা মানালি চণ্ডীগড়ের লেখা পড়ে আর ছবি দেখে চোখে ছানি পড়ে গেছিলো। এদিকে গাদাখানেক লোকজন কোত্থেকে জানতে পেরে ফোন লাগিয়েছে, দাদা গাড়ি লাগেগা, হোটেল লাগেগা, এইসব। আমি আমার বিখ্যাত হিন্দিতে তাদের যথাসম্ভব নিরস্ত করছি। একজন তো বিরক্ত হয়ে বলেই বসল হোটেল লাগবে না তো কি গাছতলায় থাকবেন? সেই কবে টিকিট কাটা হয়েছে, সিমলার ঘর বুক করা হয়েছে। ব্যাস, তারপর দিন যেন আর কাটছেই না। শেষে কাল অফিসে সবাইকে টা টা করে বেরিয়ে মনটা কেমন ফুরফুরে হয়ে গেল। সত্যি বলছি ফেব্রুয়ারির আঠাশ তারিখ, সবে মাইনে ঢুকেছে অ্যাকাউন্টে, অফিসে জেলাস পার্টি গুম হয়ে বসে আছে যেই শুনেছে দেড় সপ্তাহের ছুটিতে সিমলা মানালি বেড়াতে যাচ্ছি। এদিকে আমিও হ্যাপ্পি হোলি ইন অ্যাডভান্স বলে একটু তাড়াতাড়িই বেরিয়ে পড়েছি।আজ রাতের ঘুমটা খুব জরুরি। কারণ কালকে রাতটা ট্রেনে জেগে কাটাবো। গড প্রমিস, একটুও ঘুমোবো না। ট্রেনে ঘুম আসে না তা নয়, ছোটবেলায় দোলনায় দুলিয়ে দুলিয়ে ঘুম পাড়ানো হত, ধেড়ে হয়ে যাওয়ার পরে একমাত্র ট্রেনেই দুলে দুলে ঘুমোনো যায়। কিন্তু কাল তো পূর্ণিমা, চারদিকে চাঁদের আলো পড়বে, আর আমি ভোঁস ভোঁস করে নাক ডাকিয়ে ঘুমোবো এমন বেরসিক আমি নই। তাই বলে যে দাঁতে কলম আটকে কবিতা লিখব তাও নয়। শুধু বাইরের দিকে তাকিয়ে মোবাইলে খুব প্রিয় কিছু গান শুনব এরকম ইচ্ছে আছে। সক্কাল বেলা বাইরে চেঁচামেচি। পিচ্চি পিচ্চি সব বাচ্চাগুলো রং খেলতে বেরিয়ে পড়েছে। ধেড়েরা বারোটার পর বেরোবে, কারণ ওদের বারোটা অনেক আগেই বেজে গেছে। এমন ছুঁচো, কি একটা কিনতে একটু বেরিয়েছিলাম, বাঁদুরে রং লাগিয়ে দিলো। আমিও আচ্ছা করে কথা শুনিয়ে দিয়েছি ওর বাবা না কাকা কে একটা দাঁড়িয়েছিল ভুত হয়ে, তাকে। বুঝলাম, সাতটা চল্লিশে হাওড়া থেকে ট্রেন, যদি সুস্থভাবে যেতে হয়, তবে পাঁচটায় বেরোতে...
শিবখোলা-অহলদাঁড়া ভ্রমণকাহিনী

শিবখোলা-অহলদাঁড়া ভ্রমণকাহিনী

শিবখোলা-অহলদাঁড়া ভ্রমণকাহিনী : শীতের সন্ধ্যার নিশ্ছিদ্র অন্ধকারকে ভেদ করে যখন পূর্ণ-চন্দ্র তার অপরুপ রুপ-মাধুর্যের ডালি নিয়ে অহলদাঁড়ার পাহাড়ে উদ্ভাসিত হল তখন অপেক্ষমান বঙ্গকূলবর্গের আকর্ণরঞ্জিত হাস্যধারা এবং সম্মিলিত কলতান বৃক্ষকোটরে সুখনিদ্রামগ্ন বিহঙ্গকূলকেও জানান দিয়ে গেল “শহুরে অভ্যাসের দাসত্ব ধ্যানমগ্ন পাহাড়েও জলজ্যান্ত রুপে প্রতীয়মান” । চন্দ্রালোকিত অহলদাড়ার শীর্ষদেশে দাঁড়িয়ে দুরের কাঞ্চনজঙ্ঘার আবছা অবয়ব মনের ক্যানভাস রাঙিয়ে দিয়ে গেল, কিন্ত্তু ইঁট-কংক্রীটের জঙ্গল থেকে পালিয়ে এসেও রেহাই পেলাম কই? অপরাধ মার্জনা করবেন, অকস্মাৎ রবি ঠাকুরের প্রতি একটু জেলাস হয়ে পড়লাম, আমসত্ত্ব-দুধকলার কম্বিনেশনে হাপুস-হুপুস শব্দের মাঝেও একমাত্র তাঁর মতো মহামানব-ই পারেন চারপাশের লুকিয়ে থাকা নিস্তব্ধতাকে খুঁজে নিতে । ঘড়িতে সাড়ে ৮টা বাজার ইঙ্গিত মিলতেই পাহাড়ী দাজু এসে রাতের আহার শেষ করে ওদের তাড়াতাড়ি ছুটি দেবার মিনতি জানিয়ে গেল । কিন্তু মনে হলনা তা আদৌ কারোর ‘কর্ণ বেয়ে মর্মে পশিল’ । আরো আধঘন্টা জানুয়ারীর প্রথম সপ্তাহের পাহাড়ী ঠান্ডাটা উপেক্ষা করে কাটিয়ে দিলাম । শীতটা জাঁকিয়ে পড়ার উপক্রম হতেই ধীরলয়ে চন্দ্রশোভা অবলোকন করার লোকের সংখ্যাও কমতে থাকল । ঘড়ির কাঁটা ৯টা পেরোতেই রাতের রুটি-মাংসের বরাদ্দ উদরস্হ করে, গরম পানীয় জলের বোতল কব্জা করে যখন কোয়েচা কোম্পানী-নির্মিত তাঁবুর সামনে এসে দু-দন্ড দাঁড়ালাম, তখনও দুই বীরপুঙ্গব তাৎক্ষনিক স্বর্গসুখ লাভের আশায় কিংবা শীতজয়ের দুরন্ত প্রয়াসে নিভন্ত বনফায়ারের সামনে ঈশ্বরীয়(?) বোতলে স্বেচ্ছাবন্দী । তাঁবুর উষ্ণতায় নিজেকে সেঁকে নিতে নিতে তিন বান্ধব নিজেদের অস্হি-মজ্জা-চর্মকে শ্লিপিংব্যাগরূপী শীতবর্মের মাঝে সমর্পণ করলাম । ‘অদ্যই শেষ রজনী’, কাল ফিরতে হবে শহুরে কোলাহলমুখর কংক্রীটের জঙ্গলে যেখানে প্রচলিত প্রফেশনাল ইঁদুর-দৌড়ে আমিও এক অদক্ষ প্রতিযোগী । প্রকৃতি মায়ের কাছে প্রার্থণা করলাম এই ভ্রমণকে আবার রিওয়াইন্ড করে দেবার জন্য । বাস্তবে যদি নাও বা হয়, অন্ততঃ সুখস্বপ্নে… । ওয়েলস সাহেব কেন যে শুধু টাইমমেশিনের গল্পটা লিখেই ক্ষান্ত হলেন; ফরমূলাটা একবার হাতে পেলে লড়ে যেতাম । অতএব “মন চলো নিজ...